A New Earth – Book Review

A New Earth – Book Review

একার্ট টুলের “The power of now” বইটির পর আরেকটি চমৎকার বই হলো “A New Earth” বইটি। “The power of now” বইটি পড়েছিলাম দেড় বছর আগে ও বইটি নিঃসন্দেহে দারুণ ছিল। “Power of now” বইটিতে বর্তমান মুহূর্তে থাকার ব্যাপারটি নিয়ে বিস্তরভাবে ব্যাখ্যা করা ছিলো। তবে তার লেখা ‘A New Earth’ বইটি এটির চেয়েও গভীর ও ইনসাইটে পরিপূর্ণ।

এ বইটির একটা চমৎকার বিষয় এতে থাকা বর্তমান তথা ‘now’ এর পাশাপাশি ইগোয়িক ডিসফাংশন নিয়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা আছে। এছাড়াও বিভিন্ন দর্শন সম্পর্কিত মত ও বিভিন্ন মনীষীদের নিয়ে গড়ে ওঠা মতবাদের কথাগুলোর সাথে এই বর্তমানের সম্পর্ক সাধন করা হয়েছে।

আমাদের সমাজে এখন আমরা যা দেখি চারদিকে ভোগবাদ। আর এর কারণে মানুষ হয়ে পড়ছে অস্থির। বর্তমান পৃথিবীর মানুষের মানসিক অস্থিরতা, পরিবেশের বিপর্যয় ইত্যাদি থেকে মুক্তির উপায় কী? তিনি তখন বলেন আমাদের কনশাসনেস বৃদ্ধির কথা৷ আমরা সামাজিক মাধ্যম থেকে হোক বা টেলিভিশন থেকেই হোক প্রতিনিয়ত অজস্র দুঃসংবাদ, বাজে খবর এগুলো শুনছি ও আতংকিত হয়ে পড়ছি।

কিন্তু আসলেই কী চারদিকে অশান্তি বিরাজ করছে? চারদিকে কী একটুও ভালো কিংবা শান্তিমূলক অবস্থা নেই? আসলে একটু লক্ষ্য করলে দেখা যাবে যে, সহিংসতা যেমন ঘটছে তেমনি শান্তিমূলক কাজ ও অবস্থাও ঘটে চলেছে। কিন্তু আমাদের কাছে যে তথ্য পরিবেশন করা হচ্ছে আমরা তাতে প্রভাবিত হয়ে পড়ছি। এখানে আমাদের মনের প্রকৃতির দিকে তাকালে দেখতে পাবো যে, এটা একটি বিষয়কে তার প্রকৃত আকার যেমনটি রয়েছে তার থেকেও বড় করে প্রতিফলিত করে। আর এ কাজ হয়ে থাকে মূলত ইগো ডিসফাংশনের জন্য।

আমরা নিজের মনের সাথে অনেক কথাবার্তা বলে থাকি। কিন্তু যখন আমরা এ চিন্তা করি তখন যদি এর দিকে লক্ষ্য করি তখন আসলে কী ঘটে?

তখন আমরা সনস্ত অতীত, ভবিষ্যৎ ফেলে আমরা বর্তমানে ফিরে আসি। আর এ বর্তমান থেকে এক শক্তিপ্রকার শক্তি আসে, সতেজতা আসে যা থেকেই উৎপন্ন হবে ‘A New Earth’ – একটি নতুন পৃথিবী; একটি নতুন ডাইমেনশন।

0Shares

নাজিউর রহমান নাঈম

আমিকে খুঁজে বেড়াচ্ছি। কিন্তু সে যে কোথায় লুকাইলো ও এই লোকটি যে তা বড় আশ্চর্যের বিষয়! আমি হারিয়ে যা হল একে কীই-বা বলা যায় বলুন। এখন যাকে দেখছেন সে তো অন্য কাজ করে বেড়াচ্ছে, তার পরিচয়ও নিশ্চয়ই বদলে গেছে। তাহলে আপনি কাকে দেখছেন? দেখছেন আপনাকে আপনার চিন্তাকে যা আপনাকে আমাকে দেখাচ্ছে বা কল্পনা করাচ্ছে। তাহলে শুধু শুধু পরিচয় জেনে কী হবে বলুন। তার চেয়ে বরং কিছু সাইকোলাপ-ই পড়ুন ও নিজেকে হারিকেন নিয়ে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ুন। পথিমধ্যে হয়ত কোথাও দেখা হয়েও যেতে পারে!!! সে পর্যন্ত- কিছু কথা পড়ে থাকুক জলে ভেজা বিকালে খুঁজে চলুক এই আমি পিলপিল করে অনন্ত "আমি" র অদৃশ্য পর্দার আড়ালে

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *