১৫ টি জেন অনুশীলন

আমাদের কর্মক্ষেত্রে নানা ধরনের চাপ, ঝামেলা অনেক কিছুই থাকে। এখন এর মধ্যে থেকে মাইন্ডফুলনেস আনা বা মাইন্ডফুল থাকা একটা চ্যালেঞ্জই বটে! আর এজন্য থিচ নাথ হান আমদের ১৫ টি অনুশীলনের কথা বলছেন যা আমরা আমাদের কর্মক্ষেত্রে মাইন্ডফুলনেস আনার ক্ষেত্রে বা মাইন্ডফুল থাকতে ব্যবহার করতে পারি। এখন আমরা এক এক করে অনুশীলনগুলো সম্পর্কে জানবো –

১ নং অনুশীলন

একটি জায়গায় বসে ১০ মিনিট ধ্যান করে দিনের শুরু করো।

২নং অনুশীলন

বসার জন্য সময় নাও এবং নিজের নাস্তা আনন্দের সাথে গ্রহণ করো।

৩নং অনুশীলন

সবসময় নিজেকে এই কথা ভক্তিসহকারে স্মরণ করাও যে তুমি কতটা ভাগ্যবান যে তুমি আজ বেঁচে আছো এবং সম্পূর্ণ নতুন ২৪ ঘন্টা আজ তুমি পেলে।

৪ নং অনুশীলন

কখনো নিজের সময়কে “আমার সময়” ও “কাজ” এই দুয়ের মাঝে বিভক্ত করো না। প্রতিটা সময়ই তোমার সময় যদি তুমি বর্তমান অবস্থায় থাকতে পারো এবং তোমার শরীর এবং মনের সাথে কী ঘটছে তা খেয়ালে রাখতে পারো।
এরককমটা মনে করার কোন কারণ নেই যে তোমার কাজের সময়ের চেয়ে অন্য কোন সময় বা জায়গায় কাটানো মুহূর্ত বেশী আনন্দদায়ক।

৫ নং অনুশীলন

যখন তুমি তোমার কাজে যাচ্ছো বা কাজ থেকে ফিরছো বা কারো সাথে দেখা করতে যাচ্ছো তখন কাউকে কল করা থেকে বিরত থাকো। সেই সময়টাতে নিজের সাথে থাকো, আশেপাশের প্রকৃতি ও তোমার চারপাশে কী হচ্ছে তার দিকে খেয়াল রাখো।

৬ নং অনুশীলন

যেখানে তুমি কাজ করো সেখানে একটা জায়গা(ব্রিদিং এরিয়া) খুঁজে বের করো যেখানে গিয়ে তুমি শান্ত হতে পারো, বিশ্রাম নিতে পারো।
প্রতিদিন তুমি সে জায়গায় গিয়ে (ব্রিথিং ব্রেক) নাও যাতে তুমি তোমার শরীরের দিকে একটু মনোযোগী হতে পারো এবং নিজেকে বর্তমান অবস্থায় নিয়ে আসতে পারো।

৭ নং অনুশীলন

দুপুরবেলা শুধুই তোমার খাবার খাও, নিজের ভয় ও দুঃশ্চিন্তাগুলোকে খাওয়া বাদ দাও। কখনো নিজের ডেস্কে খাবার খেয়ো না। অন্য পরিবেশে চলে যাও অথবা হাঁটতে বেরিয়ে পড়ো।

৮ নং অনুশীলন

চায়ের সাথে সম্পর্ক তৈরী করে ফেলো। চা খাওয়ার সময় কাজ করা বন্ধ করো এবং গভীর দৃষ্টিতে নিজের চায়ের দিকে তাকাও এবং এটি কীভাবে তোমার কাছে এসে পৌঁছেছে, এটির পেছনে যারা যারা পরিশ্রম করে এ চা উৎপাদন করেছে এসবকিছু গভীর দৃষ্টিতে দেখো।

৯ নং অনুশীলন

যখনই কারো সাথে সাক্ষাৎ করতে যাবে এমন একজনকে কল্পনায় ভিজুয়ালাইজ করো যে কীনা শান্তিপূর্ণ, মাইন্ডফুল, স্কিলফুল। নিজেকে শান্ত ও শান্তিপূর্ণ রাখতে এই কল্পিত ব্যক্তিটিকে তোমার আশ্রয়স্থল হিসেবে ব্যবহার করো।

১০ নং অনুশীলন

তোমার বস, তোমার থেকে বড় যারা আছেন, তোমার সহকারীরা, অথবা তোমার আশেপাশের যারা আছেন তাদের দিকে বন্ধুসুলভ দৃষ্টিতে তাকাবার অনুশীলন করো; তাদের দিকে শত্রুভাবাপন্ন দৃষ্টি দেওয়া পরিত্যাগ করো। এটা উপলব্ধি করার চেষ্টা করো যে কোন কাজ একসাথে করলে তা সবচেয়ে সন্তুষ্টি ও আনন্দ বয়ে আনে। আর সবার সফলতা ও সুখকে নিজের সুখ বলে জেনো।

১১ নং অনুশীলন

যদি তুমি রাগ অথবা বিরক্তি অনুভব করো তাহলে সাথে সাথে কিছু বলতে বা করতে যেও না। তুমি তখন তোমার নিজের শ্বাসের প্রতি ফিরে আসো এবং নিজের শ্বাস ভিতরে যাওয়া এবং বের হয়ে যাওয়ার প্রতি খেয়াল করা শুরু করো। আর এটা ততক্ষণ পর্যন্ত করতে থাকো যতক্ষণ না পর্যন্ত তুমি শান্ত হচ্ছো।

১২ নং অনুশীলন

কর্মক্ষেত্রে তোমার সহযোগী যারা রয়েছেন প্রতিদিন তাদের ইতিবাচক গুণগুলোর প্রতি তোমার কৃতজ্ঞতা ও তারিফ নিবেদন করো। এটা তোমার কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ বদলে দিবে, জায়গাটিকে করে তুলবে আরো ঐক্যময় ও আনন্দপূর্ণ।

১৩ নং অনুশীলন

চেষ্টা করো পুনরায় শান্ত ও সজীব হয়ে উঠার জন্য যখন তুমি বাড়ি ফিরতে যাচ্ছো; এতে করে তুমি তোমার নেতিবাচক শক্তি ও হতাশা তোমার বাড়িতে বয়ে নিয়ে যাওয়া থেকে রেহাই পাবে।

১৪ নং অনুশীলন

যখন তুমি বাড়িতে পৌঁছে যাবে ও ঘরের কাজ শুরু করতে যাবে তার আগে কিছু সময় নাও নিজেকে শান্ত করো ও নিজের মাঝে ফিরে এসো। আর এটা মনে রেখো যে,মাল্টিটাস্কিং মানে হল তুমি কখনোই একটি বিষয় নিয়ে সম্পূর্ণ বর্তমানে অর্থাৎ সচেতন থাকতে পারবে না। একটি সময়ে কেবল একটি কাজই করো এবং পরিপূর্ণ মনোযোগ তাতে ঢেলে দাও।

১৫ নং অনুশীলন

আর দিনের শেষে ঐদিন তোমার সাথে ঘটে যাওয়া ভালো স্মৃতিগুলো একটি জার্নালে লিপিবদ্ধ করো। তোমার আনন্দ ও কৃতজ্ঞতাবোধকে প্রতিদিন পানি দাও যাতে করে সেগুলোর আরও বৃদ্ধি হয়।

0Shares

নাজিউর রহমান নাঈম

আমিকে খুঁজে বেড়াচ্ছি। কিন্তু সে যে কোথায় লুকাইলো ও এই লোকটি যে তা বড় আশ্চর্যের বিষয়! আমি হারিয়ে যা হল একে কীই-বা বলা যায় বলুন। এখন যাকে দেখছেন সে তো অন্য কাজ করে বেড়াচ্ছে, তার পরিচয়ও নিশ্চয়ই বদলে গেছে। তাহলে আপনি কাকে দেখছেন? দেখছেন আপনাকে আপনার চিন্তাকে যা আপনাকে আমাকে দেখাচ্ছে বা কল্পনা করাচ্ছে। তাহলে শুধু শুধু পরিচয় জেনে কী হবে বলুন। তার চেয়ে বরং কিছু সাইকোলাপ-ই পড়ুন ও নিজেকে হারিকেন নিয়ে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ুন। পথিমধ্যে হয়ত কোথাও দেখা হয়েও যেতে পারে!!! সে পর্যন্ত- কিছু কথা পড়ে থাকুক জলে ভেজা বিকালে খুঁজে চলুক এই আমি পিলপিল করে অনন্ত "আমি" র অদৃশ্য পর্দার আড়ালে

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *