লাইলীর প্রেমে দিওয়ানা মজনু

এটা কথিত আছে যে মজনু একদিন ঠিক করল, লাইলীর দর্শন করে, অমূল্য যা কিছু দেখার ছিলো সে দেখে ফেলেছে, তাই এখন আর তার চোখ খোলা রাখারই বা কী দরকার?

সে তখন ঠিক করলো যে যখনই লাইলী তার কাছে আসবে শুধুমাত্র তখনই সে চোখ খুলবে; অন্যথায় সে অন্ধের মত চোখ বন্ধ করে
থাকবে কেননা সেখানে আর অমূল্য কোনকিছু দেখার মত নেই।

কয়েকমাস চলে গেল লাইলী আর আসে না – পিতামাতা তার বিরুদ্ধে চলে গিয়েছিলো, সমাজও তার বিরুদ্ধে চলে গিয়েছিলো – এবং মজনু চোখ বন্ধ অবস্থায় অপেক্ষার পর অপেক্ষা করতে লাগল গাছের নিচে বসে যেখানে তারা দেখা করত।

দিন চলে যায়, সপ্তাহ ও মাস চলে যায়, কিন্তু সে তার চোখ দুটি খোলে না।

গল্পটি বলে যে, খোদার মজনুর প্রতি দয়া হয়। সে মজনুর কাছে আসে এবং বলে, “বেচারা মজনু আমার, চোখ খোলো। দেখো আমি স্রষ্টা নিজে তোমার কাছে এসেছি। তুমি এই পৃথিবীর সবকিছু দেখে ফেলেছো, কিন্তু তুমি আমাকে দেখোনি।
চোখ খুলে তাকাও, দেখো কে তোমার সামনে দাড়িয়ে আছে।”

মজনু জবাবে বলে, “দূর হও এখান থেকে। আমি কেবলমাত্র লাইলীকেই দেখবো বলে ঠিক করেছি। দেখার জন্য এরচেয়ে দামী আর কোনকিছু নেই। তুমি হয়ত খোদা হতে পারো, কিন্তু এ নিয়ে আমার মাথাব্যথা নেই। দূর হয়ে যাও এখান থেকে, আমাকে বিরক্ত করো না।

বিস্মিত হয়ে, খোদা বলল, ” তুমি এগুলো কী বলছ? আমি নিজে থেকে কখনো এমনভাবে কারো কাছে আসিনি। অনুসন্ধানকারীরা ও ভক্তরা প্রার্থনা করে এবং খোঁজ করে ও অনুশীলন করে – তারপরও এটা খুব,, খুব কঠিন আমার দর্শন পাওয়া – আর আমি নিজে থেকে তোমার কাছে আসলাম অথচ তুমি একবার এ বিষয়ে আমাকে জিজ্ঞাসা পর্যন্ত করলে না। আমি এখানে এসেছি তোমার জন্য একটি উপহার হয়ে আর তুমি কীনা এটা প্রত্যাখ্যান করছো।”

এরপর মজনু বলল –

 

“যদি তুমি সত্যিই চাও আমি তোমাকে দেখি, তাহলে লাইলী হয়ে আমার কাছে আসো, কেননা এছাড়া আমি আর কোনকিছুই দেখতে পাই না। এমনকী আমি যদি আমার চোখ খুলিও আমি এছাড়া আর কোনকিছুই দেখতে পাবো না। আমি একটি গাছের দিকে তাকাই, এবং সেখানে দেখি লাইলীকে। আমি একটি তারার দিকে তাকাই, এবং সেখানে দেখি লাইলীকে। লাইলী আমার হৃদয়ের মধ্যিখানে বিরাজ করে এবং সে আমার সমস্ত হৃদয় জুড়ে আছে। আর আমি যা কিছুই দেখি না কেন আমি আমার হৃদয় দিয়ে দেখি। আমি দুঃখিত, আর কোন সম্ভাবনা নেই, আমার হৃদয়ে আর কোনকিছুর জন্য জায়গা অবশিষ্ট নেই। আমি দুঃখিত। আমাকে মাফ করো, এখান থেকে চলে যাও। আমাকে আর বিরক্ত করো না।”

 

এটাই হলো ইশক্ (Ishq)। এমনকী খোদা… হ্যা এমনকী খোদাকেও কেউ উপেক্ষা করতে পারে।

ওশো
দ্য সিক্রেট , পরিচ্ছেদ – ০১
লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ্

0Shares

নাজিউর রহমান নাঈম

আমিকে খুঁজে বেড়াচ্ছি। কিন্তু সে যে কোথায় লুকাইলো ও এই লোকটি যে তা বড় আশ্চর্যের বিষয়! আমি হারিয়ে যা হল একে কীই-বা বলা যায় বলুন। এখন যাকে দেখছেন সে তো অন্য কাজ করে বেড়াচ্ছে, তার পরিচয়ও নিশ্চয়ই বদলে গেছে। তাহলে আপনি কাকে দেখছেন? দেখছেন আপনাকে আপনার চিন্তাকে যা আপনাকে আমাকে দেখাচ্ছে বা কল্পনা করাচ্ছে। তাহলে শুধু শুধু পরিচয় জেনে কী হবে বলুন। তার চেয়ে বরং কিছু সাইকোলাপ-ই পড়ুন ও নিজেকে হারিকেন নিয়ে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ুন। পথিমধ্যে হয়ত কোথাও দেখা হয়েও যেতে পারে!!! সে পর্যন্ত- কিছু কথা পড়ে থাকুক জলে ভেজা বিকালে খুঁজে চলুক এই আমি পিলপিল করে অনন্ত "আমি" র অদৃশ্য পর্দার আড়ালে

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *