মানুষ আকাঙ্ক্ষা কেন করে ??

মানুষ আকাঙ্ক্ষা কেন করে ??
মানুষ আকাঙ্ক্ষা কেন করে?? আকাঙ্ক্ষা মানুষকে তার আসল ভালোবাসা থেকে দূরে সরিয়ে দেয়। সে ভালোবাসা বর্ননা করে ব্যক্ত করা যায় না।
 
আপনি কোন মহৎ কিছু আকাঙ্ক্ষা করুন আর আপনার জন্যই কোন কিছু আকাঙ্ক্ষা করুন না কেন, দুটোই আপনাকে আসল সত্য হতে দূরে সরিয়ে দেবে।
 
ধরুন মিঃ রহমান নামায পড়েন কারন তিনি আকাঙ্ক্ষা করেন যে এই নামাযের মাধ্যমে তিনি আল্লাহ কে পাবেন আর আল্লাহকে পেলেই তার সকল সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।
 
তাহলে তার আসল উদ্দেশ্য আল্লাহ নয় তার উদ্দেশ্য আল্লাহর মাধ্যমে তার সকল সমস্যা সমাধান করা। আর এভাবেই তিনি তার আকাঙ্ক্ষার কারনে আল্লাহ হতে দূরে সরে যাবেন।
এটা শুধু আল্লাহর ক্ষেত্রে নয় সকল ক্ষেত্রের সাথে আপনারা মিলিয়ে দেখতে পারেন।
 
আবার ধরা যাক মিঃ রহমানের আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী তিনি তার সকল সমস্যা সমাধান করলেন ও এরপর তিনি আগের থেকেও আরও বেশী নামাযী হয়ে গেলেন এই আশায় যে এতে আল্লাহ তার পরের সমস্যা সমাধান করে দেবেন ও প্রয়োজনে তাকে টাকা পয়সায়ও দেবেন। এতে করে কী দেখতে পেলেন আপনারা তিনি আরও লোভী হয়ে গেছেন।
 
তো মিঃ রহমানের টাকার প্রয়োজন হয়ে পড়ল, তো তিনি বরাবরের মতো আল্লাহর কাছে বললেন, কিন্তু এবার তিনি আল্লাহকে পেলেন না কারন মিঃ রহমানের মত আরও অনেক কেই আল্লাহর সাহায্য করতে হয়। তাই মিঃ রহমানের ভেতর প্রচন্ড রাগ জন্মালো তার সাথে ঘৃনাও চলে এল।
 
তো তিনি চাচ্ছেন যে তিনি নামায পড়া ছেড়ে দেবেন। কিন্তু তিনি নামায ছাড়তেও পারছেন না কারন তার মনে এক ধরনের ভয় হওয়া শুরু করলো এতদিন নামায পড়লাম এখন হঠাৎ করে ছেড়ে দেব আল্লাহ যদি নারাজ হয়ে আমাকে শাস্তি দেয় আর লোকেই বা কী বলবে।
 
তাহলে আপনারা দেখলেন যে আকাঙ্ক্ষা করার ফলে তার মধ্যে কীভাবে অশান্তি, দুঃখ ও ভয় বাসা বেধেছে।
তাই বুদ্ধ বলেছেন, “Desire is the root cause of suffering.”
 
তাহলে যেহেতু আমাদের আকাঙ্ক্ষাই আমাদের সব অশান্তির মূল তাহলে দিলাম সব আকাঙ্ক্ষা কোরবানী দিয়ে এরপর?
 
এরকমই তো প্রশ্ন আসছে তাই না?
 
এরপর যখন আপনি সকল আশা-আকাঙ্খা মন থেকে ঝেড়ে ফেলে দিলেন তখন যা পড়ে থাকবে তাকে আল্লাহ, গড, ঈশ্বর যাই বলেন ওটা সেটাই।
 
আর যখন আপনি তার সংস্পর্শে আসবেন তখন আপনার ভাষা দ্বারা তা বর্ননা করা যাবে না। তখন চারপাশে শুধু সে আর সেই থাকবে। আর তখন আপনি কিছু করুন বা না করুন আপনি সুখ অনুভব করতে পারবেন।
 
আর তখন আপনি তাই করবেন যা আপনি প্রকৃতপক্ষে ভালোবাসেন। আর তখন আপনি আপনার কাজ দ্বারা আপনি টাকা, নাম, সম্মান পান বা না পান আপনার কিছু যাবে আসবে না, ওগুলো আপনাকে স্পর্শ করতে পারবে না।
 
আর এটাই মুক্তি। এটাই এনলাইটেনমেন্ট।
0Shares

নাজিউর রহমান নাঈম

আমিকে খুঁজে বেড়াচ্ছি। কিন্তু সে যে কোথায় লুকাইলো ও এই লোকটি যে তা বড় আশ্চর্যের বিষয়! আমি হারিয়ে যা হল একে কীই-বা বলা যায় বলুন। এখন যাকে দেখছেন সে তো অন্য কাজ করে বেড়াচ্ছে, তার পরিচয়ও নিশ্চয়ই বদলে গেছে। তাহলে আপনি কাকে দেখছেন? দেখছেন আপনাকে আপনার চিন্তাকে যা আপনাকে আমাকে দেখাচ্ছে বা কল্পনা করাচ্ছে। তাহলে শুধু শুধু পরিচয় জেনে কী হবে বলুন। তার চেয়ে বরং কিছু সাইকোলাপ-ই পড়ুন ও নিজেকে হারিকেন নিয়ে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ুন। পথিমধ্যে হয়ত কোথাও দেখা হয়েও যেতে পারে!!! সে পর্যন্ত- কিছু কথা পড়ে থাকুক জলে ভেজা বিকালে খুঁজে চলুক এই আমি পিলপিল করে অনন্ত "আমি" র অদৃশ্য পর্দার আড়ালে

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *