দেকার্তের ভুল থেকে সার্ত্রের অন্তর্দৃষ্টি পর্যন্ত

সপ্তদশ শতাব্দীর দার্শনিক দেকার্ত যাকে আধুনিক দর্শনের জনক বলা হয় তিনি এই প্রাথমিক ভুলের উপর আলোকপাত করেছেন তাঁর বিখ্যাত বাণী(যাকে তিনি প্রাথমিক সত্য বলে ধরে নিয়েছিলেন) : “আমি চিন্তা করি, তাই আমি আছি।” – এর মাধ্যমে। এটিই ছিল তাঁর উত্তর এ প্রশ্নটির “এমন কী কোন উত্তর আছে যেটিকে আমি একদম নিশ্চিতরূপে জানতে পারি?”

তিনি এই সত্য উপলব্ধি করেছিলেন যে যা তিনি সবসময় চিন্তা করতে থাকেন তা সন্দেহের উর্ধ্বে, আর এজন্য তিনি চিন্তনকে সত্তার সমপর্যায়ের বলে ধারণা করেন, বলতে গেলে একে বলা যায়, আইডেনটিটি – আমি আছি- এর সাথেও রয়েছে চিন্তন। পরম সত্যের পরিবর্তে তিনি খুঁজে পেয়েছিলেন অহংকারের মূল শেকড়, কিন্তু তিনি এটা জানেননি।

এটা প্রায় তিনশত বছর সময় নিয়ে নেয় যার পরে অন্য আরেকজন বিখ্যাত দার্শনিক এই বক্তব্যটির মাঝে গুরুত্বপূর্ণ কিছু খুঁজে পান যা দেকার্ত এবং অন্যান্য যারা ছিলেন তাঁরা এ বিষয়টি উপেক্ষা করে গেছেন। তাঁর নাম ছিল জ্যাঁ পল সার্ত্র। তিনি দেকার্তের বক্তব্য  “আমি চিন্তা করি, তাই আমি আছি” -এর উপর গভীরভাবে নজর দেন এবং হঠাৎ করে উপলব্ধি করেন, তাঁর নিজের ভাষায় তিনি বলেন, “যে চেতনা বলে ‘আমি আছি’ এটা সেই চেতনা নয় যা চিন্তা করে।” এর দ্বারা তিনি আসলে কী বোঝাতে চান? যখন তুমি সচেতন যে তুমি চিন্তা করছো, এই চেতনাটা কোন চিন্তার অংশ নয়। এটা হল ভিন্ন একটি মাত্রার চেতনা। এবং এটাই হল সেই চেতনা যেটা বলে “আমি আছি”।

যদি সেখানে কিছুই না থাকতো কেবলমাত্র তোমার চিন্তা ছাড়া তাহলে হয়তোবা তুমি এটাও জানতে পারতে না যে তুমি চিন্তা করছো। তুমি হয়তোবা একজন স্বাপ্নিকের মত হতে যে কীনা জানে না সে আসলে স্বপ্ন দেখছে। তুমি একজন স্বাপ্নিক হিসেবে তোমার স্বপ্নের মধ্যকার  প্রতিটি চিন্তা ও প্রতিটি চিত্রের সাথে আইডেনটিফাইড হয়ে যেতে।

অধিকাংশ মানুষই এভাবে জীবনযাপন করে, ঘুমের মাঝে হাঁটতে থাকা ব্যক্তির মত, পুরনো ত্রুটিযুক্ত মানসিক ধারণার ফাঁদে আটকে রয়েছে যা প্রতিনিয়ত তৈরী করে চলেছে একই ভয়াবহ বাস্তবতা। যখন তুমি জানবে যে তুমি স্বপ্ন দেখছো তখন তুমি স্বপ্নের মাঝেও জেগে রবে। অন্য মাত্রার এক চেতনা প্রবেশ করবে।

সার্ত্রের সাথে সম্পর্কিত এই অন্তর্দৃষ্টি  তাৎপর্যপূর্ণ, কিন্তু তিনি নিজেও তখনও অনেক আইডেনটিফাইড ছিলেন যা তিনি আবিষ্কার করেছিলেন তার পুরো তাৎপর্য অনুধাবন করার চিন্তার সাথেঃ একটি নতুন মাত্রার উদীয়মান চেতনা।

BOOK NAME : A NEW EARTH

WRITER : ECHKART TOLLE

0Shares

নাজিউর রহমান নাঈম

আমিকে খুঁজে বেড়াচ্ছি। কিন্তু সে যে কোথায় লুকাইলো ও এই লোকটি যে তা বড় আশ্চর্যের বিষয়! আমি হারিয়ে যা হল একে কীই-বা বলা যায় বলুন। এখন যাকে দেখছেন সে তো অন্য কাজ করে বেড়াচ্ছে, তার পরিচয়ও নিশ্চয়ই বদলে গেছে। তাহলে আপনি কাকে দেখছেন? দেখছেন আপনাকে আপনার চিন্তাকে যা আপনাকে আমাকে দেখাচ্ছে বা কল্পনা করাচ্ছে। তাহলে শুধু শুধু পরিচয় জেনে কী হবে বলুন। তার চেয়ে বরং কিছু সাইকোলাপ-ই পড়ুন ও নিজেকে হারিকেন নিয়ে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ুন। পথিমধ্যে হয়ত কোথাও দেখা হয়েও যেতে পারে!!! সে পর্যন্ত- কিছু কথা পড়ে থাকুক জলে ভেজা বিকালে খুঁজে চলুক এই আমি পিলপিল করে অনন্ত "আমি" র অদৃশ্য পর্দার আড়ালে

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *